শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:০৩ অপরাহ্ন
পরীক্ষামূলক সম্প্রচার:
সিরাজগঞ্জে সুবিধাভোগীর টাকা আত্মসাতের দায়ে গ্রাম পুলিশ চাকরিচ্যুত বগুড়ায় বাসের ধাক্কায় অটোরিকশার দুই নারী যাত্রী নিহত আজ করোনায় ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে বরিশাল ও রাজশাহী বিভাগে মৃত্যু নেই কুড়িগ্রামে স্কুল খোলার ৫ দিনেও ক্লাস শুরু না হওয়ায় বিপাকে ২৮৫ শিক্ষার্থী মান্দায় দিনব্যাপী প্রাণীসম্পদ প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত বাঘাইছড়িতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে একজন নিহত আজ করোনা সংক্রমণ কয়েক মাসে সর্বনিম্ন।। সিলেট ও ময়মনসিংহ বিভাগে মৃত্যু নেই কৃতি ছাত্রী নৈঋতা হালদারকে সম্মাননা সাংগঠনিক কর্মকান্ড গতিশীল করতে রাঙ্গামাটিতে যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত গাজীপুরে বজ্রপাত প্রতিরোধী তালবীজ বপন

সারিয়াকান্দিতে পৃথকভাবে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৩ জুন, ২০২১
  • ৭২ দেখা হয়েছে

বাংলা হেডলাইনস বগুড়া প্রতিনিধি: বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলায় ত্যাগী নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন ও পরিবারতন্ত্র অব্যাহত থাকায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েছেন।

একপক্ষে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সংসদ সদস্য সাহাদারা মান্নান শিল্পী ও অন্যপক্ষে সাবেক সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মুনজিল আলী

সরকার।

আজ বুধবার দু’পক্ষ আলাদাভাবে সংগঠনের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করেছে। এছাড়া আলাদা দলীয় কার্যালয়েরও উদ্বোধন করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) আসনের সংসদ সদস্য আবদুল মান্নান জীবিত থাকাকালে তার স্ত্রীকে সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি করেন। তার শ্যালক অ্যাডভোকেট মিনহাদুজ্জামান লীটনকে সোনাতলা উপজেলা চেয়ারম্যান করা হয়।

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সভাপতির পদ নিয়েও অসন্তোষ আছে। সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক সাবেক পৌর মেয়র আলমগীর শাহী সুমনকে দায়িত্ব পালনে বাধা দেওয়া হয়।

যুগ্ম সম্পাদক আবদুল খালেক দুলুকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক করা হয়। পরিবারের সদস্যদের বেশি মূল্যায়ন ও ত্যাগী নেতাকর্মীদের অবমূল্যায়ন করায় নেতাকর্মীরা দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পড়েন।

আবদুল মান্নানের মৃত্যুর পর উপনির্বাচনে তার স্ত্রী সাহাদারা মান্নান শিল্পী এমপি নির্বাচিত হন। সোনাতলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হন শিল্পীর ভাই মিনহাদুজ্জামান লীটন। সোনাতলাতেও লীটনের সাথে ভাইস চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা জাকির হোসেনের সাথেও বিরোধ চরমে রয়েছে। তাদের অবমূল্যায়নের কারণে দুটি উপজেলায় ত্যাগী নেতাকর্মীরা মরহুম সংসদ সদস্য আবদুল মান্নান পরিবারের উপর বিরক্ত।

বুধবার সকালে সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে সংগঠনের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করা হয়।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য সাহাদারা মান্নানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল খালেক দুলু, সহ-সভাপতি মমতাজুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক ও পৌর মেয়র মতিউর রহমান মতি, সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী বেলাল হোসেন, কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম দুখু, শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন ছকো, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আশিক আহমেদ, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দুলাল প্রমুখ।

এছাড়াও দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং কেক কাটা হয়।

অন্যদিকে বিকালে বঞ্চিত ত্যাগী নেতাকর্মীদের উদ্যোগে পৃথকভাবে দলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করা হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মুনজিল আলী সরকার বিকাল ৫টায় হিন্দুকান্দি সিএনজি স্ট্যান্ডের সামনে প্রধান অতিথি হিসেবে বেলুন উড়িয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।

এছাড়া সেখানে সংগঠনের পৃথক অফিসের উদ্বোধন করা হয়েছে। নতুন দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম মন্টু মন্ডলের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য রেজাউল করিম মন্টু মন্ডল, সাবেক সহ-সভাপতি আবদুল হামিদ সরকার, ফুলবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ারুত তারিক মোহাম্মদ, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইউনুছ আলী, আওয়ামী লীগ নেতা রফিকুল ইসলাম, জাহিদুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সোহান সাগর প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আলাদাভাবে সংগঠনের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন ও নতুন দলীয় কার্যালয় উদ্বোধন প্রসঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি অধ্যক্ষ মুনজিল আলী সরকার বলেন, দলীয় কর্মসূচিতে দীর্ঘদিনের ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের ডাকা হয়না। যেহেতু আমরা আওয়ামী লীগ পরিবারের তাই নতুন অফিস নিয়ে পৃথকভাবে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য সাহাদারা মান্নান শিল্পী জানান, দলীয় সকল কর্মকান্ডে তাদের ডাকা হয়। কিন্তু তারা অভিমান করে আসেন না। কেউ না এলে আর কি করা যাবে?

তবে ত্যাগী নেতাকর্মীরা সংগঠনের এ কোন্দল ও গ্রুপিং মিটিয়ে ফেলতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। অন্যথায় সংগঠন ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে তারা জানিয়েছেন।

ফেসবুকের মাধ্যমে আমাদের মতামত জানাতে পারেন।

খবরটি শেয়ার করুন..

এই বিভাগের আরো সংবাদ
Banglaheadlines.com is one of the leading Bangla news portals, Get the latest news, breaking news, daily news, online news in Bangladesh & worldwide.
Designed & Developed By Banglaheadlines.com